সব ঘরে পৌঁছবে ডিজিটাল রেশন কার্ড, বিশেষ ক্যাম্প করছে রাজ্য

জলি মজুমদার

৯ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে ডিজিটাল রেশন কার্ড বিলির বিশেষ ক্যাম্প। চলবে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। যাঁরা যোগ্য অথচ এখনও ডিজিটাল রেশন কার্ড পাননি, তাঁরা আবেদন জানাতে পারবেন এই ক্যাম্পে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরনায় এবং পশ্চিমবঙ্গ সরকারের খাদ্য সরবরাহ দফতরের উদ্যোগে এই ডিজিটাল রেশন কার্ড প্রদানে খুশি বাংলায় কয়েক কোটি মানুষ। রাজ্য সরকারের খাদ্য দফতর সূত্রে খবর, গ্রাম এলাকায় ব্লক অফিস, কলকাতার ক্ষেত্রে বরো অফিস এবং অন্যান্য পুর-এলাকায় এ জন্য যোগাযোগ করতে হবে। ডিজিটাল কার্ডে কোনও ভুল সংশোধনের জন্যও আবেদন জানানো যাবে এই সব শিবিরে। যাঁরা কার্ডে কোনও পরিবর্তন বা সংশোধন করতে চান তাঁরা এই সমস্ত ক্যাম্পে এসে সহজেই তা করতে পারবেন। সম্প্রতি হাওড়ার প্রশাসনিক পর্যালোচনা বৈঠকে দ্রুত রেশন কার্ড বিলি করতে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর পরেই ডিজিটাল রেশন কার্ড সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহে তড়িঘড়ি মাঠে নেমে পড়ে রাজ্য খাদ্য দফতর। এ ব্যাপারে তারা জেলা খাদ্য দফতরকে রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। প্রতিদিন রাজ্য খাদ্য দফতরে এই রিপোর্ট পাঠাতে হবে। ডিজিটাল রেশন কার্ড যাতে প্রতিটি ঘরে পৌঁছে যায় তার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রতিটি এলাকার জনপ্রতিনিধি এবং খাদ্য দফতরকে তৎপর হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। খাদ্য দফতর সুত্রে জানানো হয়েছে “ইউ” ফর্ম পুর এলাকার বাসিন্দাদের জন্য এবং “আর” ফর্ম পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দাদের জন্য তৈরি হয়েছে । কে কোন ফর্ম নেবেন তাও বিশদে বলা হয়েছে খাদ্য দফতরের নির্দেশিকায়। যদি পরিবারকে ভর্তুকিযুক্ত খাদ্য প্রাপকের তালিকায় অর্ন্তভুক্ত  করতে চান ভবে ফর্ম নম্বর তিন নিতে হবে। পরিবারে নতুন সদস্য সংযোজন করার জন্য রয়েছে ফর্ম নম্বর চার। নাম অথবা ঠিকানায় কোনও সংশোধন করতে চাইলে পাঁচ নম্বর ফর্ম তুলতে হবে। ডিলার পরিবর্তন করতে হলে ছ’নম্বর ফর্ম ফিলাপ করতে হবে। কার্ড বাতিল করার জন্য রয়েছে ফর্ম নম্বর সাত। আগের কার্ড হারিয়ে গেলে ডুপ্লিকেট কার্ডের জন্য ফর্ম নম্বর নয় ফিলাপ করতে হবে।

দেশের অন্যান্য রাজ্য যা পারছে না, বিগত আট বছরে তাই করে দেখিয়েছে বাংলার খাদ্য দফতর । যার নেতৃত্ব দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের খাদ্যসাথী প্রকল্প আজ সারা দেশে সুপ্রতিষ্ঠিত। রাজ্যে মা মাটি মানুষের সরকারে আসার পর উন্নয়ন পৌঁছে গিয়েছে সাধারণ মানুষের ঘরে। যার অন্যতম, ফুড ফর অল। জননেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ২টাকা কেজি দরে চাল মানুষের কাছে পৌঁছে গিয়েছে। খাদ্যসাথী প্রকল্পে রাজ্যের প্রায় ৯.০৮ কোটি মানুষ ভর্তুকিযুক্ত খাদ্যশস্য পাচ্ছেন। ২০১৮-১৯ খরিফ মরশুমে ১১,০৩,৫৫২ জন কৃষকের কাছ থেকে ন্যুনতম সহায়ক মূল্যে প্রায় ৪০ লক্ষ মেট্রিক টন ধান কেনা হয়েছে। শুধু তাই নয়, গুদামের ধারণ ক্ষমতা ২০১১ সালে ছিল ৬৩ হাজার মেট্রিক টন। বর্তমানে তা দাঁড়িয়েছে ৯,৫৬,২৪৪ মেট্রিক টনে। ৮ কোটি ৮০ লক্ষ রাজ্যবাসী খাদ্যসাথী প্রকল্পের আওতাভুক্ত। তাঁদের দেওয়া হয়েছে ডিজিটাল রেশন কার্ড । আরও ২৫ লক্ষ কার্ড বিতরণ করছে রাজ্য সরকার । অন্ত্যোদয় অন্নপূর্ণা যোজনা, বিশেষ অগ্রাধিকার প্রাপ্ত পরিবার, রাজ্য খাদ্য সুরক্ষা যোজনা ১-এর আওতাভুক্ত রাজ্যবাসীকে ২টাকা কেজি দরে চাল পৌঁছে দিচ্ছে বর্তমান সরকার। দেওয়া হচ্ছে ২টাকা কেজি দরে গম। এছাড়াও চা বাগানে বসবাসকারী সব পরিবার ২টাকা কেজি দরে প্রতি মাসে ৩৫ কেজি রেশন পাচ্ছেন। কাজে গতি আনতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও দ্রুত কাজ করতে নির্দেশ দিয়েছেন। রাজ্য থেকে কত রেশন কার্ড জেলায় পাঠানো হয়েছে, বিলি না হওয়া রেশন কার্ড পঞ্চায়েত অফিস, পুরসভা, মহকুমা বা জেলা খাদ্য দফতরে কোথায় কত পড়ে আছে এবং সেগুলো বিলি করার বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তার দৈনন্দিন রিপোর্ট পাঠানোর জন্য নির্দেশে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সম্প্রতি বিধানসভায় খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে সর্বদল বৈঠক ডাকতে বলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি সমীক্ষার প্রস্তাবও দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী! রেশন বিষয়ক আলোচনা প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “বিজেপি এনআরসি চালু করতে চলেছে। এই এনআরসি-র জন্য মানুষের মনে ভয় ঢুকে গিয়েছে। এটা বাংলার মানুষকে ভূমিচ্যুত করার চক্রান্ত। সে জন্য একটা পরিচয়পত্র হিসাবে সবাই রেশন কার্ড রাখতে চাইছে। তৃণমূল এই এনআরসির তীব্র বিরোধিতা করছে।” খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, “সাধারণ মানুষ কষ্ট করে উপার্জন করে। তাঁদের কোনও দল হয় না। এই রেশন কার্ডের বিষয়ে সর্বদল ডেকে পরামর্শ নেওয়া হবে।”

This post is also available in: English

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial