রাজ্যে আসছে মাইক্রোসফট, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর  

হিয়া রায় 

বাংলা এখন উন্নয়নের প্রথম সারিতে। রাজ্য এগোচ্ছে। কৃষি, শিল্প, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কর্মসংস্থান সবেতেই বাংলা এখন দেশের মধ্যে শীর্ষস্থানে। জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলার মানুষের জন্য উন্নয়ন করে চলেছেন। রাজ্য সরকারের প্রধান লক্ষ্য উন্নয়নকে ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া। মানুষ সেই মানুষের কর্মযজ্ঞে শামিল হয়েছেন। একাধিক জনকল্যাণমূলক প্রকল্প নিয়েছেন মুখামন্ত্রী। তেমনই পরিবেশ সচেতনতায় পদযাত্রা করলেন জননেত্রী! অরাজনৈতিক এই পদযাত্রায় শামিল হলেন সমাজের সর্বস্তরের মানুষজন।

বাংলা যে সব দিক থেকে অগ্রনী ভূমিকায় রয়েছে, তার প্রমাণ মিলেছে একাধিক পুরস্কার ও স্বীকৃতি। সেই সূত্রেই ই-কমার্স ও তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে জোড়া খুশির খবর। রাজ্যে আসছে মাইক্রোসফট। ই-কমার্স প্র্যাটফর্ম তৈরি করে তারা কাজ করবে ছ’লক্ষ তাঁতির কল্যাণে। ফিরছে উইপ্রোও। ১০ হাজার কর্মসংস্থান করবে এই তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা। নজরুল মঞ্চে দাঁড়িয়ে যাকে ‘মিষ্টি খবর’ বলে ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেছেন, “রাজ্যের মুকুটে দু’টি নতুন পালক যুক্ত হল।”

নজরুল মঞ্চে পরিবেশ দূষণ রোধে সবুজ বাঁচাও নিয়ে অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী বললেন, “আপনাদের একটা সুখবর দিই। রাজ্যে আসছে উইপ্রো। নিউটাউনে সিলিকন ভ্যালিতে ৫০ একর জমি দেওয়া হয়েছে তাদের। ১০ হাজার যুবক-যুবতী সেখানে কাজ পাবে” ইতিমধ্যে ১০০ একর জমিতে সিলিকন ভ্যালি আইটি হাব তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। তার সঙ্গে আরও ১০০ একর জমি দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যেই ৫০ একর জমি দেওয়া হয়েছে উইপ্রোকে। তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে নতুন প্রকল্প নিয়ে রাজ্যে উইপ্রোর পদক্ষেপকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে রাজ্য এগিয়েছে। বলা ভাল, আরও এগোচ্ছে। রাজ্যের শিল্প বান্ধব পরিবেশ নিয়ে উৎসাহী শিল্পপতিরা। প্রতি বছর বিশ্ববঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলনে দেশের স্বনামধন্য শিল্পপতিদের উপস্থিতি বিশেষ নজর কাড়ে। রাজ্যে শিল্পের উপযুক্ত পরিবেশ ও পরিকাঠামো দেখে উৎসাহী উদ্যোগপতিরা। তাঁরা বাংলায় বিনিয়োগ করছেন। কর্মসংস্থান হচ্ছে। বাংলা এগোচ্ছে।

তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে রাজ্য সরকার একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে। সল্টলেকের সেক্টর ফাইভকে সাজিয়ে তোলা হয়েছে। বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা সেখানে বিনিয়োগ করেছে। আগামিদিনে বাংলায় আরও সংস্থা আসছে। যারমধ্যে উল্লেখযোগ্য মাইক্রোসফট। পাশাপাশি ইউপ্রো’র রাজ্যে পদক্ষেপও অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। শিল্পমহল বলছে, বাংলা আজ বিনিয়োগের গন্তব্যস্থল। দেশ, বিদেশের শিল্পপতিদের নজরে বাংলা। তার অন্যতম কারণ জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নমূলক প্রকল্প। মুখ্যমন্ত্রী সবদিক থেকে বাংলাকে দেশের উন্নয়নের মানচিত্রে শীর্ষস্থানে নিয়ে গিয়েছেন। বাংলার মানুষ সুখে, শান্তিতে আছেন। উত্তর থেকে দক্ষিণে উন্নয়ন হচ্ছে। এই উন্নয়নই বাংলার ইউএসপি। আর তা সম্ভব হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্যই। তাই শিল্পবান্ধব পরিবেশ দেখে উৎসাহিত শিল্পপতিরা। তাঁরা এগিয়ে আসছেন। বাংলায় বিনিয়োগ করেছেন।

This post is also available in: Bangla

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial