পিংলার সভায় শুভেন্দু; মাথা উঁচু করে কাজ করুন

নবারুণ হাজরা

তৃণমূল কংগ্রেস মানুষের শক্তিতে বিশ্বাস করে। মানুষও তাই আগামিদিনে তৃণমূলেই আস্থা রাখবেন। বিজেপি যেভাবে রাজ্যজুড়ে গুন্ডামি করছে, তা বাংলার সংস্কৃতি-সম্প্রীতির মাটিতে চলতে পারে না। বিধানসভা ভোটে সর্বত্র তৃণমূলের জয়-জয়কার হবে। দলীয় কর্মীদের তাই মাথা উঁচু করে কাজ করার পরামর্শ দিলেন রাজ্যের পরিবহণ, সেচ ও জলসম্পদমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। পিংলা অডিটোরিয়ামে মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী একটি কর্মিসভা করে দলীয় কর্মীদের আরও বেশি করে জনসংযোগে ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ দেন। বিভিন্ন সময়ের উদাহরণ তুলে ধরে দলীয় কর্মীদের হতাশ না হওয়ার পরামর্শ দেন। বলেন, “আমরা এখনও ক্ষমতায় রয়েছি। ভোটের হারও বেড়েছে। এখনও বিধানসভা নির্বাচন হতে ২৪ মাস বাকি। আমরা ঘুরে দাঁড়াবই। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শেই দল আগামিদিনে আরও ভাল ফল করবে।”

বাম জমানায় তৃণমূলের খারাপ সময়ে কীভাবে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ও দেখানো পথে দল এগিয়েছে সে কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে কর্মীদের তিনি বলেন, “মাথা উঁচু করে কাজ করুন। তৃণমূল মারধরের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। এটা মা-মাটি মানুষের দল। মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়ান। মানুষের কাজ করুন।” যে এলাকাগুলিতে বিরোধীরা গোলমাল করেছে সেই এলাকাগুলিতে কয়েকদিন পরে প্রতিবাদ সভা করার কথাও বলেন মন্ত্রী। কর্মীদের তিনি বলেন, “সমস্ত ঘটনার রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করা হবে। ২০১১ সালে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনে পরাস্ত হওয়ার পরে পিংলার সিপিএমের বহু নেতা ও কর্মী স্বেচ্ছায় এলাকা ছেড়ে চলে গিয়েছে। তৃণমূল কাউকে তাড়ায়নি। তারাই এই লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পরেই আবার উদয় হয়েছেন। লাল জামা ছেড়ে গেরুয়া জামা পরে পথে নেমে পড়ছে। আর টার্গেট করছে তৃণমূল কর্মীদের।” পাশাপাশি তিনি যে কোনও সিদ্ধান্ত ঐক্যবদ্ধভাবে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন স্থানীয় নেতাদের। এলাকার বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র সুস্থ হয়ে উঠার পরে একদিন মেদিনীপুর কিংবা কোলাঘাটে পিংলার দলের নেতাদের ডেকে নিয়ে একটা সভা করবেন বলেও জানান মন্ত্রী।

জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে জেলায় জেলায় ঘুরছেন শুভেন্দুবাবু। কর্মীদের আশ্বস্ত করছেন। তাঁদের মনোবল বাড়াচ্ছেন। তাঁর প্রতিটি কর্মিসভাতেই ভিড় উপচে পড়ছে। শুভেন্দুবাবু বলেন, “সিপিএমের প্রাক্তন হার্মাদরা বিজেপির ঝান্ডা হাতে নিয়ে আমাদের দলীয় কার্যালয় দখল ও ভাঙচুর করে চলেছে। এ জিনিস চলতে পারে না। বাংলায় দখলদারির রাজনীতি বরদাস্ত করা হবে না। রাজনৈতিকভাবে তার মোকাবিলা হবে।” তিনি কর্মীদের সাহস দিয়ে বলেন, “আমি আপনাদের পাশে ছিলাম, আছি, থাকব। আপনাদের কোনও ভয় নেই। মুখ্যমন্ত্রী আপনাদের পাশে আছেন। আমি আছি।” তিনি বলেন, “এখন আমরা একটি নতুন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে চলছি। সিপিএমের প্রাক্তন হার্মাদরা বিজেপির পতাকা হাতে নিয়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। আমরা এর আগেও হার্মাদদের মোকাবিলা করেছি। তাগুবের জেরে আমাদের যে সমস্ত কর্মীসমর্থক ঘরছাড়া হয়ে রয়েছেন আমাদের প্রথম কর্তব্য হল তাঁদের ঘরে ফেরানো।” সর্বত্র জনসংযোগ বৃদ্ধি করার পরামর্শ দেন দলীয় নেতাদের। জানান, ২০১৪ সালে আমরা ৩৯ শতাংশ ভোট পেয়েছিলাম। এই নির্বাচনে আমরা ৪৪ শতাংশ ভোট পেয়েছি। অর্থাৎ রাজোর গরিব মানুষ আমাদের সমর্থন করেছেন। এখনও ১৬৫টি বিধানসভা আসনে এগিয়ে রয়েছি। অতএব ঘাবড়ানোর কিছু নেই।

This post is also available in: English

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial