জনসংযোগ

মুশকিল আসান’ জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনিই পরিত্রাতা। ‘দিদিকে বলো’- তে ফোন করে মিলছে সুরাহা। ‘দিদিকে বলো’ অর্থাৎ মোবাইল ফোনে বা ইমেলের মাধ্যমে জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমস্যার কথা, পরামর্শ জানানোর উদ্যোগের সূচনা থেকেই প্রভূত সাড়া মিলেছে নাগরিকদের থেকে। গঠনমূলক পরামর্শ ও প্রস্তাব যেমন আসছে, তেমনই তারা সমস্যার কথাও জানাচ্ছেন। শুধু রাজ্যের নন, অন্য রাজ্যে বসবাসকারী বাংলার বাসিন্দারাও মোবাইলে জননেত্রীকে সমস্যার কথা জানিয়ে দ্রুত সুরাহা পেয়েছেন। ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচি মেনে ‘৯১৩৭০৯১৩৭’ নম্বরে ফোন করে নিজেদের সমস্যার কথা জানিয়েছিলেন দিঘার মৈত্রিয়াপুরের মৎসজীবীরা। নিজেদের সমস্যার কথা ফোনে জানালে এভাবে যে স্বয়ং জননেত্রী হাজির হতে পারেন, সেটা ভাবতেই পারেননি দিঘার এই সমুদ্র গ্রামের মানুষজন। তাই সামনাসামনি মুখ্যমন্ত্রীকে পেয়ে অবাক মৎসজীবীরা। এই প্রথম রাজ্যের বা সারা দেশের কোনও সরকারের প্রধান ফোন পেয়ে সরাসরি সমস্যা সমাধানে একেবারে সেই জায়গায় হাজির হলেন। এমন ঘটনা নজিরবিহীন। জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই এমনটা পারেন। কারণ, তিনি জনগণের আন্দোলন করেই আজ এই জায়গায় উঠে এসেছেন। যখনই রাজ্যের যেখানে সাধারণ মানুষের কোনও সমস্যার কথা শুনেছেন, জেনেছেন তাদের উপর অত্যাচার বা নির্যাতনের কথা, তিনি সেখানে ছুটে গিয়েছেন। সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। ২০১১ সালে তিনি বিপুল জনসমর্থন নিয়ে নির্বাচনে জয়ী হয়ে মুখ্যমন্ত্রীর পদে বসেন। কিন্তু, তারপরেও তিনি সেইভাবেই জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছেন সব অবস্থায়! আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থার যুগে মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে তাঁকে জনগণের সমস্যা জানানো আরও সহজ হয়েছে। স্থায়ী ঠিকানা নেই। শরীরে বাসা বেঁধেছে যক্ষ্মা কেউ দেখার নেই। তাই এত সমস্যা সত্ত্বেও কিছুতেই চিকিৎসার ব্যবস্থা হচ্ছিল না হাওড়ার এক ব্যক্তির। শেষ পর্যন্ত ‘দিদিকে বলো’-র সাহায্যে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হতে পেরেছেন তিনি। চিকিৎসা শুরু হয়েছে। পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ার এক বাসিন্দা কেরল থেকে ‘দিদিকে বলো’ তে ফোন করে আবেদন জানান, আরও ১৪ জনের সঙ্গে তিনি কিজুরে বন্যায় আটকে আছেন। প্রচণ্ড বর্ষণে ট্রেন-বাস বন্ধ। ওই জায়গায় খাদ্য, জল, বিদ্যুৎ নেই। তাঁদের ভ্রুত উদ্ধার করা হোক। ‘দিদিকে বলো’-র তরফ থেকে লিখিত বিবৃতিতে চাওয়া হয়, বহু খোঁজাখুঁজির পর বাপন এবং তাঁর সঙ্গীদের উদ্ধার করে কারওয়ারের একটি হোটেলে তোলা হয়। সেখানে খাবার-দাবার, জল সবই আছে। পরিস্থিতির উন্নতি হলে তাদের বাংলায় ফেরানোর ব্যবস্থা হয়। ‘দিদিকে বলো’ সরকারি ক্ষেত্রে জনসংযোগ বিপ্লব এনেছে।

This post is also available in: Bangla

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial