গণ পরিষেবায় আরও জোর পরিবহণে

আদৃতা ভট্টাচার্য

উন্নয়ন। শুধুমাত্র উন্নয়ন। সেই উন্নয়নের একমাত্র উদ্দেশ্য যাত্রী সাধারণের স্বাচ্ছন্দ। একের পর এক নতুন অত্যাধুনিক বাস কেনা। নতুন নতুন রুট তৈরি করা। এবং অবশ্যই সরকারি পরিষেবাকে একটি উচ্চতায় তুলে ধরতেই আটবছর ধরে কাজ করে চলেছে রাজ্যের পরিবহণ দফতর। বাস্তবিকই তাই। উন্নয়নকে মূলমন্ত্র করে এগিয়ে চলছে পরিবহণ দফতর। ২০১০- ১১সাল। রাজ্য বাজেটে পরিবহণ খাতে বরাদ্দ করা হয়েছিল ৯১৭.১২ কোটি টাকা। ঠিক ছয় বছর পর ২০১৬-১৭ সাল। একধাক্কায় পরিবহণ খাতে বরাদ্দ বেড়ে হল ১৯০৩.৭৩ কোটি টাকা। আর চলতি বছরে বাজেট বেড়েছে। তৈরি হয়েছে নতুন নতুন রুট। একের পর এক নতুন প্রকল্প চালু হয়েছে যাত্রী পরিবহণে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন হয়েছে। গণপরিবহণে অনন্য নজির তৈরি করেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার।

বেকার সমস্যায় গুরুত্ব: নতুন নতুন প্রকল্প চালু করে বেকার সমস্যারও সমাধানেও অগ্রাধিকার দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথমেই বলা যায় “গতিধারা” প্রকল্পের কথা। ১০০ শতাংশ সরকারি তহবিলের মাধ্যমে বেকার যুবকদের এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্ক থেকে নাম নথিভুক্ত করে হয়েছে। সরকারি তথ্য বলছে, এখনও পর্যন্ত ১২৫ কোটির বেশি টাকা খরচ করা হয়েছে এই প্রকল্পে । চলতি বছরে প্রকল্পের খরচ আরও বেড়েছে বলাই বাহুল্য। এই প্রকল্পে উপকৃত হয়েছেন প্রায় ১৩,৩৯৩ জন বেকার যুবক। শুধুমাত্র গণপরিবহণের উন্নতি সাধনই নয়।

সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ : পথদুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণেও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে পরিবহণ দফতর। বস্তুত, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় “সেফ ড্রাইভ সেভ লাইভ” কর্মসূচি এক নতুন মাত্রা পেয়েছে রাজ্যজুড়ে। দফতরের কর্মসূচি সফল রূপায়ণের ফলে পথদুর্ঘটনা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। একই অভিমত পুলিশ বিভাগেরও| সরকারি তথ্য বলছে, এখনও পর্যন্ত এই খাতে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। পথদুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে যেমন পুলিশের অত্যাধুনিক সিসিটিভির মাধ্যমেও চলছে নজরদারি। এই নীতি কলকাতার পাশাপাশি রাজ্যের সব জেলাতেই প্রযোজ্য হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায়। গণ পরিবহণের আমূল সংস্কারের পাশাপাশি এই দফতরের পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্যও একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। দফতরের আধিকারিকদের বক্তব্য, পথদুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি পরিকাঠামো উন্নয়নও যে জরুরি তা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থেকেই শেখা।

গণ পরিষেবাকে আরও উন্নত করতে গত আট বছরে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় ২৫টি নতুন মোটর ভেহিক্যালস অফিস তৈরি হয়েছে। সদ্য তৈরি হওয়া তিন জেলা কালিম্পং, ঝাড়গ্রাম ও এবং পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতেও তিনটি নতুন অফিস তৈরি হয়েছে। এই তিনটি জেলাতে আরটিএ-ও তৈরি হয়েছে। আরও কয়েকটি জেলাতে অফিস খোলার প্রস্তুতি চলছে বলে দফতর সুত্রে খবর। পরিবহণ দফতরকে বিকেন্দ্রীকরণের জন্য কলকাতার পাশাপাশি কসবা ও সল্টলেকেও নতুন দফতর খোলা হয়েছে। শিলিগুড়ি ও দুর্গাপুরে দু’টি নতুন আঞ্চলিক কেন্দ্র গড়ে তোলারও পরিকল্পনা রয়েছে। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় মোটর ভেহিক্যালস অফিসগুলিকে একই ছাতার তলায় আনার পরিকল্পনা আছে।

  নতুন ডিরেক্টরেট: জন পরিবহণ ডিরেক্টরেট তৈরি করা হয়েছে। বিভাগীয় আধিকারিকদের বক্তব্য, এটি একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। পরিচালনার সুবিধার জন্য ক্যালকাটা স্টেট ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশন, সিটিসি ও ডবলু  বিএসটিসিকে একই ছাতার তলায় আনা হয়েছে। তৈরি হয়েছে ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশন। কলকাতার বিভিন্ন স্টেট ট্রান্সপোর্টের অধীনে থাকা বিশাল জমিকে কাজে লাগানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দফতরের তথ্য বলছে অন্তত ৩০০ কোটি টাকার সংস্থান করা সম্ভব হয়েছে। গত ছয় বছরে অন্তত ১,৯৭২টি নতুন সরকারি বাস কেনা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৭৪টি অত্যাধুনিক এসি বাস। বস্তুত বেসরকারি বাসের সঙ্গে পাল্লা দিচ্ছে সরকারি বাস রাজ্যের রাস্তায়। জেএনএনইউআরএম প্রকল্পের আওতায় এই বাসগুলি কেনা হয়েছে। কলকাতা সংলগ্ন গড়িয়া, যাদবপুর ও দূরবর্তী ঝাড়গ্রাম শহর সহ অন্তত ২১৩ টি বাস টার্মিনাস উন্নয়নের জন্য অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। সরকারি পরিবহণের পাশাপাশি বেসরকারি পরিবহণের উন্নয়নের জন্য বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ৭,৫৬৯ টি বেসরকারি বাসের পারমিট দেওয়া হয়েছে বেসরকারি পরিবহণ মাধ্যমকে আরও উন্নত করার লক্ষ্যে। কলকাতা ও সংলগ্ন এলাকায় চালু হয়েছে ই-রিকশা, ই-বাইকের মতো ব্যবস্থা। এরই পাশাপাশি জলপথ পরিবহণের আমুল সংস্কার করা হয়েছে। সংস্কার করা হয়েছে দীর্ঘদিনের পুরনো জেটিগুলি। সাতবছর আগে দফতরের আয় ছিল ৯৮৬ কোটি টাকা। এখন তা বেড়ে হয়েছে ১৯০৩.৭৩ কোটি টাকা। আর এই কাজ সম্পন্ন হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায়। বস্তুত উন্নয়নের আরেক নাম পরিবহণ দফতর।

This post is also available in: English

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial