কোর কমিটির বৈঠকে বার্তা জননেত্রীর পশ্চিমবঙ্গে ৪২-এ ৪২

৪২-এ ৪২ চাই। তবেই সব শক্তি নিয়ে লড়াই করতে পারবে বাংলা। ২০১৯-এ বিজেপির বিদায় চাই। ভারতবর্ষে পরিবর্তন চাই। বাংলাই সেই পরিবর্তনের কান্দারি হবে। রক্ষা পাবে দেশের সংহতি, ঐক্য, গণতন্ত্র। দলের কোর কমিটির বৈঠকে নেতা-কর্মীদের সাফ জানিয়ে দিলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এই ৪২ আসনের প্রার্থী দ্রুত ঠিক করে দেবেন নেত্রী। রাজ্য-সহ ভিনরাজ্যেও প্প্রার্থী দেওয়া হবে। নেত্রী একইসঙ্গে জানিয়ে দিয়েছেন, প্রার্থী যে-ই হোক, লড়াইটা তৃণমূল কংগ্রেসের। তাই লড়তে হবে সবাইকে।

বিগত পাঁচ বছর ধরে মানুষকে ভুল বুঝিয়ে, নোটবন্দি করে, জোর করে জিএসটি বসিয়ে মানুষে মানুষে বিভেদ তৈরী করে, হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে হানাহানি করে দেশকে রসাতলে পাঠাতে চাইছে বিজেপি। সেই উগ্র দানবীয় বিদ্বেষী শক্তির বিদায় হলেও ভাল থাকবে ভারতবর্ষের মানুষ। জননেত্রী মমতা জানিয়ে দিলেন, “উগ্র, দানবীয় এক বিদ্বেষী শক্তি, যাদের দেখলে আঁতকে উঠতে হয়য়। ভয় পেতে হয়। এত ভয়াবহ রাজনৈতিক দল ভারতবর্ষে কখনও আসেনি।” এই শক্তিকে দেশ থেকে উপড়ে ফেলার লড়াইয়ে নামার ডাক দিয়েছেন নেত্রী। বলেছেন, “৩৪ বছর লড়াই করে বামফ্রন্টকে যদি সরাতে পারি। পাঁচ বছরে এই মোদি নামে ডিক্টেটর সরকারকে সরাবই।”

বস্তুত, মানুষকে ভুল বুঝিয়ে ভ্রান্ত ধারণা তৈরী করে বিজেপি চাইছে ভোট নিয়ে ষড়যন্ত্র করার। গোটাটা ইভিএম ও ভিভিপ্যাট মেশিন ট্যাম্পার করে এই ষড়যন্ত্র বিজেপি করছে। এই বিষয়টি প্রকাশ্যে এনে দিয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। দলের কোর কমিটির বৈঠকে সেই প্রসঙ্গ টেনেই নেত্রী জানিয়েছেন, ভোটের মুখে টাকা ছড়িয়ে, এভম-ভিভিপ্যাট মেশিন ট্যাম্পার করার খবর এসেছে। সেই চক্রান্ত ব্যার্থ করার ডাক দিয়ে নেত্রী বলেছেন, “ওরা বলছে ২৩টা আসন পাবে। ভিভিপ্যাট মেশীন ট্যাম্পার করবে। খেলাটা এত সহজ নয়। যাকে নিয়ে খেলবেন ভাবছেন, সে-ই আপনাকে উল্টে দেবে। মাডিবাবুর দিন শেষ। ঔদ্ধত্যের দিন শেষ। গদ্দারদের দিন শেষ। বিদায়ঘন্টার বাজছে। পরিবর্তন আসছে। এসো জোট বাঁধো। এসো তৈরী হও।”

তৃণমূল কংগ্রেসনেত্রী বিজেপির এই ষড়যন্ত্র ফাঁস করে স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছেন, বাংলারটি আসন তাঁর চাই। ভোট কারচুপি রুখতে সেই শক্তিই ভরসা। ভিভিপ্যাট মেশিন ও এভম মেশিনে যাতে কারচুপি না করা যায়, তার জন্য কর্মীদের প্রশিক্ষনের কথা বলেছেন নেত্রী। সেই কারণেই মন্ত্রী মহাসচিব ও মন্ত্রী পার্থ চটতোপাধ্যায়, মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, সাংসদ সৌগত রায় ও দীনেশ ত্রিবেদীকে নিয়ে একটি কমিটিও গড়ে দিয়েছেন।

ভোটের মুখে লক্ষ লক্ষ টাকা বিলিয়ে, গাড়ি-বাড়ির লোভ দেখানো বিজেপির পুরনো খেলা। তা নিয়েও সতর্ক করে দিয়েছেন নেত্রী। বলেছেন প্রচার তুঙ্গে তুলতে। আগামী ৮ই মার্চ নারী দিবসে কলকাতার রাস্তায় মিছিলে অংশ নেবেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী। মধ্য কলকাতার শ্রদ্ধানন্দ পার্ক থেকে নেত্রী হাঁটবেন ধর্মতলার ডোরিনা ক্রশিং পর্যন্ত।

জঙ্গি হামলার ঘটনাকে সামনে রেখে বাংলার গুজব ছড়িয়ে বিজেপি দাঙ্গা করতে চাইছে। তা নিয়েও সতর্ক করেছেন জননেত্রী। বলেছেন, লোকজনকে ডেকে টাকা দিয়ে আরএসএস ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সদা সতর্ক থাকুন। লিখিত অভিযোগ পুলিশকে জানান। দরকারে তাআঁকেও চঠি দিয়ে জানাতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে বলেছেন, ছেলেধরার গুজব তুলে মুসলমানের বিরুদ্ধে হিন্দুদের খেপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সম্প্রতি কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে অশান্তি করে বিজেপি। তা নিয়েও দলীয় নেতৃত্বকে সতর্ক করে দিয়েছেন। জননেত্রী বলেছেন, “রাতে কারা তান্ডব করে, যারা ডাকাত, যারা গুন্ডা। তাড়া করতে হয়য় এদের। পুলিশের হাতে ধরিয়ে দিতে হয়।”

নেত্রী বলেছেন, ভয় না পেয়ে, দুর্বল না হয়ে এসবের মোকাবিলা করতে হবে। শেষে আবার স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, বিজেপি লক্ষ লক্ষ টাকার লোভ দেখাতে পারে। সামাল দিতে হবে। হামলা রুখে দাঁড়াতে হবে। মাথা উঁচু করে লড়তে হবে। আর ফাইনাল হল—৪২-এ ৪২।

This post is also available in: English

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers