কর্ণাটকের সরকার ভাঙার চক্রান্ত করছে বিজেপি

হিয়া রায়

কর্নাটকের সরকারকে উৎখাত করার জন্য বিজেপি নোংরা খেলায় নেমেছে। বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র চলছে। বিধায়কদের আটকে রাখা হচ্ছে। সংবাদমাধ্যমকে বাধা দেওয়া হয়েছে। এই নিয়ে নিন্দা প্রস্তাব গৃহীত হল রাজ্য বিধানসভায়। শুধু নিন্দা প্রস্তাব আনাই নয়, একসুরে প্রতিবাদ জানাল কংগ্রেস, তৃণমূল। নিন্দা প্রস্তাবের সপক্ষে দাড়িয়ে কংগ্রেস, তৃণমূল, বামফ্রন্টের বিধায়করা বিজেপির “ঘোড়া কেনাবেচা-র রাজনীতির বিরুদ্ধে সরব হলেন। বিধানসভায় এই বিষয়ে সরব হওয়ার পাশাপাশি অধিবেশন কক্ষ ও সাংবাদিক বৈঠকে ক্ষোভ উগরে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপিকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন তিনি। বিজেপি যুক্তরাষ্ট্রিও কাঠামো মানছে না। সংবিধানকে মানছে না। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে বিজেপি বিরোধী নির্বাচিত সরকারের উপর আক্রমণ চলছে । যেমনটা লক্ষ করা গিয়েছে কর্নাটকের ক্ষেত্রেও। কর্নটকে জেডিইউ (এস) ও কংগ্রেসের জোট সরকার রয়েছে। কিন্তু সেই সরকারকে বিজেপি একযোগে জানিয়েছেন বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীরা। সরকার ফেলার লক্ষ্যে ‘ঘোড়া কেনাবেচার’ বিরুদ্ধে যৌথভাবে নিন্দা করে সকলে। সংসদেও কর্ণাটক ইস্যুতে তৃণমূল প্রতিবাদ জানায়।

রাজ্য বিধানসভার অধিবেশনে কর্ণাটকের ঘটনা উঠে আসে । তীব্র নিন্দা করা হয়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কর্নাটকের বিধায়কদের নানাভাবে অত্যাচার করা হচ্ছে। তাদের বাধ্য করা হচ্ছে ইস্তফা দিতে। বিধায়কদের আটকে রাখা হয়েছে। সংবাদ মাধ্যমকে বাধা দেওয়া হচ্ছে। ঘোড়া কেনাবেচা করছে। কর্নাটকের গণতান্ত্রিক সরকারকে বিজেপি ভেঙে দেওয়ার চক্রান্ত করছে। ষড়যন্ত্র চলছে। আর দিল্লি সেখানে ষড়যন্ত্র নগরী।” মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, “বিজেপি সব রাজ্য, সব বিধানসভা, ইনস্টিটিউশন, মিডিয়া হাউসকে দখল করতে চাইছে। সংকটে যুক্তরাষ্ট্রীয়া কাঠামো, সংকটে সংবিধান। দেশের জন্য যা ক্ষতিকারক ।” মুখ্যমন্ত্রী আশঙ্কা প্রকাশ করেন, বিজেপি যে ধরনের নোংরা খেলায় নেমেছে তাতে কর্ণাটকের পর মধ্যপ্রদেশ চলে যাবে। মধ্যপ্রদেশের পর রাজস্থান চলে যাবে। এই অবস্থায় বিজেপি বিরোধী সবাইকে একজোট হয়ে লড়াই করা দরকার বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, “এক মাস আগে কেন্দ্রে সরকার গড়েছে বিজেপি। তাদের উচিত দেরেছ জন্য কাজ করা। তা না করে নির্বাচিত সরকারকে ভাঙার ষড়যন্ত্র চলছে। এইভাবে কেন্দ্রের আগ্রাসন চলবে কেন?” মুখ্যমন্ত্রীর প্রশ্ন, ওরা দেশের কাজ করবে, নাকি সরকার ভাঙবে ভাঙবে? মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, কর্ণাটকের ঘটনা নিয়ে লোকসভায় আমাদের দল প্রতিবাদ জানিয়েছে বিজেপির আচরণ উদ্ধ্যত। এটা বিজেপির ঘৃণ্য রাজনীতি। বিজেপির সময়ে সংবিধান, গনতন্ত্র বিপজ্জনক অবস্থায়। ফেডারেল স্ট্রাকচারকে আঘাত করা হচ্ছে। এই অবস্থায় মুখ্যমন্ত্রী জানান, গণতন্ত্র রক্ষার জন্য একজোট হয়ে লড়াই করা দরকার। সর্বসম্মতিতে বিধানসভায় নিন্দা প্রস্তাবকে সমর্থন জানানো হয়। বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কর্নাটকে বিধায়কদের আটকে রাখা হয়েছে। ঘোড়া কেনাবেচা চলছে। রাজ্য বিধানসভা এই নিন্দা প্রস্তাবকে সমর্থন জানিয়েছে ।”

This post is also available in: English

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers