উন্নয়নে শামিল হতে তৃণমূল কংগ্রেসে মৌসম

হিয়া রায়

জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যজুড়ে যে উন্নয়ন করছেন, তা আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন মৌসম বেনজির নূর। মৌসম মালদহ উত্তর লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস সাংসদ। তিনি জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করেন। তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদানের ইচ্ছাপ্রকাশ করেন। তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদানের ইচ্ছাপ্রকাশ করেন। তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিতে চান, সেই আবেদনও জানান। তারপরই তাঁকে দলে নেওয়া হয়। মৌসমকে পাশে নিয়ে জননেত্রী বলেন, “আমাদের সংঘবদ্ধ লড়াই দেশ গড়ার। বিজেপিকে হঠাতে হবে।” এছাড়াও জননেত্রী বলেছেন, “মৌসম তো এখন সাংসদ রয়েছেই। ও-ই লড়বে লোকসভায়।”

রাজ্যের পরিবহণমন্ত্রী তথা মালদহের দলীয় পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গেই জননেত্রীর কাছে আসেন মৌসম। দেখা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে। সেখানে কথাবার্তা হয় তাঁদের। পরে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “মালদহের মানুষ মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নকে প্রত্যক্ষ করছেন। জেলা তথা রাজ্যজুড়ে উন্নয়ন হচ্ছে। বাংলার মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে আছেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বও উন্নয়নকে এগিয়ে নিয়ে যেতে তৃণমূল কংগ্রেসে শামিল হচ্ছেন।” মৌসম বলেন, “বিজেপির অশুভ রাজনীতি ভাগাভাগির দিকে মানুষকে ঠেলে দিচ্ছে। তা হতে দেওয়া যায় না। মুখ্যমন্ত্রী নিজে দেশজুড়ে তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঢেউ তুলেছেন। আমিও পাশে থাকতে চাই। মালদহে যে উন্নয়ন মুখ্যমন্ত্রীর হাত ধরে হয়েছে, সেই যজ্ঞে শামিল হতে চাই আমি।”

বস্তুত, মানুষ এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে রয়েছে। তিনিই দেশের মুখ। ব্রিগেডে তা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের নেতারা তাঁর ডাকে সাড়া দিয়ে এসেছেন। মানুষের বিশ্বাস আছে, একমাত্র মুখ্যমন্ত্রীই পারেন উন্নয়নের কাজ করতে। এখানেই মৌসম জানান, ২০১৭ সালের বন্যায় মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে সবাইকে ক্ষতিপূরণ দিয়েছেন, রাজস্থানে মালদহের এক বাসিন্দাকে পিটিয়ে মারার পর যেভাবে পাশে দাঁড়িয়েছেন, তা মানুষের বিশ্বাসকে তুঙ্গে তুলে দিয়েছে। তাই আমি মানুষের মনের কথা বুঝেই তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে কাজ করতে চাই।

This post is also available in: English

Subscribe to Jagobangla

Get the hottest news,
fresh off the rack,
delivered to your mailbox.

652k Subscribers